Onushondhan News

পূরণ হলো স্বপ্ন: পদ্মা সেতুর পুরোটাই এখন দৃশ্যমান

স্বপ্নটা মোটেও ছোট নয়। স্বপ্নের দৈর্ঘ্য যখন ৬.১৫ কিলোমিটার, এর বাস্তব রূপ দেখতে কিছুটা বেশি সময় তো দিতেই হবে। তবে অপেক্ষার পালা শেষ হলো। ঘড়িতে ঠিক ১২টা। তখনই বসানো হলো পদ্মা সেতুর ৪১তম ও সবশেষ স্প্যান ‌‘টু-এফ’।
আনুমানিক আড়াই ঘন্টা চেষ্টার পর আজ ১০ ডিসেম্বর বসানো হলো এটি। দিনটি ইতিহাস হতে গেলো দেশবাসীর স্বপ্নের পদ্মা সেতুর পূর্ণতার মধ্য দিয়ে।
মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তের সেতুর ১২ ও ১৩ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হলো এ স্প্যানটি।
পদ্মার মূল নদীতে অবস্থিত এ দুই পিলারে বসানোর মাধ্যমে দৃশ্যমান হয়েছে সেতুর ৬.১৫ কিলোমিটার। ৪০তম স্প্যান বসানোর ছয় দিনের মাথায় এ স্প্যান বসানোর কাজ শেষ করেছে দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীরা।
গতকাল বুধবার বিকেল ৫টা ৫মিনিটের দিকে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া কন্সট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে ‘তিয়ান-ই’ নামের ভাসমান ক্রেনটি ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের স্প্যানটিকে বহন করে রওয়ানা দেয়। এরপর ১২ ও ১৩ নম্বর পিলারের কাছে এসে পৌঁছায়। আজ শুধু পিলারের উচ্চতায় স্প্যানটিকে তোলার কাজ চলছে। এর আগে নোঙর করার কাজটি করা হচ্ছে।
পদ্মা সেতুর প্রকৌশলী সূত্র জানিয়েছে, পজিশনিং, এরপর পিলারের উচ্চতায় স্প্যানটিকে তোলা ও বেয়ারিংয়ের উপর রাখার ধাপগুলো শুরু হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে দুপুরের আগেই দৃশ্যমান হবে। সকাল থেকে খুঁটিনাটি বিষয়গুলো যাচাই-বাছাই ও শেষ ধাপের পরীক্ষা-নিরীক্ষাও হয়েছে।
এদিকে ১২ ও ১৩ নম্বর পিলারের আশেপাশে চলাচলকারী নৌযানগুলো যাতে স্প্যান বসানোর কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত না করে সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এরজন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বোট সারাক্ষণ সেখানে অবস্থান করছে। নিরাপদ দূরত্ব দিয়ে চলাচলের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে।
২০১৪ সালের ডিসেম্বরে সেতুর নির্মাণকাজ শুরু হয়। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিলারে প্রথম স্প্যান বসানো হয়েছিল। পদ্মা সেতু নির্মাণে প্রয়োজন হবে ২ হাজার ৯১৭টি রোডওয়ে স্ল্যাব। এছাড়া ২ হাজার ৯৫৯টি রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হবে। মাওয়া ও জাজিরা প্রান্তের বসানো স্প্যানগুলোতে এসব স্ল্যাব বসানো হচ্ছে।
৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে পদ্মাসেতুর কাঠামো। সেতুর ওপরের অংশে যানবাহন ও নিচ দিয়ে চলবে ট্রেন। মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে দেশটির আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন।
সংবাদটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান এখানেই

তারিখে ক্লিক করে সংবাদ পড়ুন

January 2021
SSMTWTF
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031 

সোশ্যাল মিডিয়ায় আমরা

সবচেয়ে বেশি পড়া হয়েছে

সর্বশেষ

আজ

  • মঙ্গলবার (দুপুর ১২:২৬)
  • ১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ৬ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি
  • ৫ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ফেসবুক-ইউটিউবে আমাদের সঙ্গে থাকুন

Don't be shy, get in touch. We love meeting interesting people and making new friends.

সর্বশেষ

সবচেয়ে বেশি পড়া হয়েছে

language change »